ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে করব?

ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে করব? [ নতুনদের জন্য A-Z গাইডলাইন ]

নতুনরা Freelancing বিষয়ে জানলেও কিভাবে শুরু করবে বা কিভাবে কি করবে তা নিয়ে আসলে দ্বিধায় থাকে । তাই বিভিন্ন এক্সপার্টদেরকে বারবার জিগাইতে থাকে “ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে করব?” যার ফলে তারা বিরক্তবোধ করেন । তাই আজকে মোটামোটি একটা গাইডলাইন দেয়ার চেষ্টা করছি যাতে প্রসেসগুলো অনেকটা পরিষ্কার হয়ে যাবে । তো, সময় নষ্ট না করে আমরা মূল বিষয়তে চলে যাইঃ

Freelancing কি? 

সহজ কথায় ইন্টারনেটের মাধ্যমে যেকোন কাজ করাকে Freelancing বলে । আরো ভালভাবে খাইয়ে দিতে বলতে হয়, আমরা সাধারণত দেখতে পাই বিভিন্ন Computer এর দোকানে Graphics এর কাজ জানে এমন মানুষেরা এবং বিভিন্ন প্রতিষ্টানে MS Office এর কাজ জানে এমন মানুষেরা কাজ করে । তারা একটা নির্দিষ্ট জায়গায় গিয়ে নির্দিষ্ট সময় মেনে দীর্ঘ সময় ধরে একই BOSS এর কাজ করে । একই কাজগুলো Online এ “Contract Basis Short time” করাকেই Freelancing বলা হয় । এই কাজগুলো সাধারণত short time হয় এবং worker এবং buyer এর মধ্যে যৌথ সম্মতিতে হয় ।

Freelancing এবং Outsourcing এর মধ্যে পার্থক্য কি?

এই বিষয়টি নিয়ে সবাই দন্দ্বে থাকে, কিন্তু খুবই সহজ ব্যপার

  • যে কাজটি করে দিচ্ছে তাকে বলা হয় Freelancer, অর্থাৎ সে Freelancing করছে ;
  • আর যিনি কাজটি করাচ্ছেন তিনি Outsourcing করছেন, যার মানে হল তিনি বাইরে থেকে কাজটি করিয়ে নিচ্ছেন ।

কিভাবে শুরু করব? 

 [ খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন ]

আমি যে প্রশ্নগুলো বেশিরভাগ করা হয় সেগুলোর উত্তরাকারে বিষয়টি পরিষ্কার করার চেষ্টা করবঃ

১) আমার কি কি যোগ্যতা থাকা লাগবে?

  • যোগাযোগ ক্ষমতা (English Written)
  • ইন্টারনেট সম্পর্কে ভাল ধারণা
  • Google এবং Youtube ব্যবহার এবং প্রয়োজনীয় তথ্য বের করে আনার মত দক্ষতা

প্রথমত এই দক্ষতাগুলি থাকলেই আপনি Freelancing এর যোগ্য । এখানে কোনপ্রকার একাডেমিক সার্টিফিকেটের মূল্যায়ন নেই, মূল্যায়ণ দক্ষতার ।

“অবশ্য এজন্য পড়ালিখা ছেরে দিয়ে Freelancing এর পেছনে দৌড়ালে পরবর্তীতে দুইপাশে মরুভুমি আর মাঝখানে সাগর দেখবেন,
কারণ Freelancing করতে সার্টিফিকেটের প্রয়োজন না হলেও Knowledge অবশ্যই প্রয়োজন যেটা একমাত্র শিক্ষা থেকেই পাওয়া সম্ভব “

২) Freelancing এ কি কি কাজ করা যায়?

এক কথায় অনলাইনে যা যা করা সম্ভব তার সব Freelancing এ করা যায় । Computer এর মাধ্যমে যা যা করা possible তা সবই Freelancing করার মত । Data Entry থেকে শুরু করে 3D Animation এর কাজও করা যায় । তবে সবগুলো মনে রাখা সম্ভব না এবং বলাও বেসম্ভব ।

তবে বাংলাদেশে প্রায় যেগুলো করে তা হলঃ

1.SEO (Search Engine Optimization)

2.Marketing

3.Article Writing

4.Graphics Design

5.Web design and development

6.Apps development

 

ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে করব?
  • Facebook
  • Twitter
  • Google+
  • Blogger

ফ্রিল্যান্সিং ক্যাটাগরি (আপওউয়ার্কের একটি স্ক্রিনশট)

৩) ভাই, কোন কাজটা সহজ? কোন কাজটা করলে ভাল হবে এবং তারাতারি Earn করা যাবে?

এইসব প্রশ্ন করা বোকামী। যাকে এই প্রশ্নটা করবেন সে অবশ্যই নিজে যে কাজটা করে সে কাজটাকেই সহজ বলবে, কারণ সে কাজটা তার কাছে সহজ । কিন্তু, আপনার কাছে সে কাজটা সহজ বা ভাল নাও লাগতে পারে। আপনার কোন কাজে দক্ষতা বা ইন্টারেস্ট লাগবে সেটা অন্য কেউ বলে দিতে পারবেনা । সুতরাং, আগে সব কাজ সম্বন্ধে জানেন এবং নিজেই ঠিক করেন কোনটা নিয়ে কাজ করবেন ।

এজন্য আপনাকে Google এবং Youtube কে কাজে লাগাইতে হবে । এই দুই জায়গায় পাবেননা এমন কিছুই নাই । যদি search করেন “আমার জি-এফের হাত থেকে কিভাবে রক্ষা পাই?”, Google এবং Youtube এ অনেক তথ্য পাই যেতে পারেন ।

এভাবেই খুজেন “What is SEO/ What is Web Design”, হাজার উত্তর পেয়ে যাবেন ।

৪) কাজ কিভাবে শিখব?

কোনটা নিয়ে কাজ করবেন ঠিক করার পর এবার শিখার পালা।

শিখার জন্য আপনাকে কোন প্রশিক্ষকের কাছে যেতে হবে, তবে ভাল প্রশিক্ষক হতে হবে । বর্তমানে অহরহ প্রতিষ্টান গড়ে উঠেছে যেগুলো নামে শেখায় । যারা অনলাইনে ভাল কিছু করতে পারেনি তারাও এখন প্রশিক্ষক, কারণ কিভাবে ইনকাম করতে হয় সেটা শিখিয়ে ইনকাম করাটা অনেক সহজ।

সুতরাং ভাল শিখায় এবং ভাল সাপোর্ট দেয় এমন প্রতিষ্টানে যেতে হবে । কারণ, সফলতা অনেকাংশেই শিখানোর উপরে নিরভর করে । এমন প্রতিষ্টান হাতে গুণা কয়েকটা আছে।

৫) কোথায় কাজ করব?

কাজ শিখার পর এবার কাজ করার পালা । সাধারণত Freelancer রা যেখানে কাজ করে সেগুলো Marketplace হিসেবে পরিচিত । Market বলতে “sell and buy” বুঝায়, তেমনই Marketplace এ বায়াররা তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী বিস্তারিত লিখে “job post” দেয় এবং Freelancer রা ঐ Job এ প্রপোজাল পাঠায় যাকে “Bid” বলা হয়। তারপর বায়ার ইন্টারভিউ নিয়ে যোগ্য ব্যাক্তিকে বাছাই করে নেয় এবং কাজ দেয় । কাজটা করে দেয়ার পর বায়ার পেমেন্ট করে দেয় ।কাজের লেন্থ কয়েক মিনিট থেকে কয়েকমাস বা দীর্ঘমেয়াদীর ক্ষত্রে কয়েকবছরের জন্যও হায়ার করতে পারে ।

Top freelancing marketplaces
  • Facebook
  • Twitter
  • Google+
  • Blogger

কিছু ভাল ভাল মার্কেটপ্লেইস

৬) টাকা কিভাবে তোলব?

কাজ করার পর $ আপনার Marketplace Account এ জমা থাকবে এবং সেগুলো তোলার কয়েকটা উপায় আছেঃ

  • PayPal
  • Payoneer
  • Bank wire

PayPal বাংলাদেশে সাপোর্ট করেনা, তাই এটার কথা বলে লাভ নেই। তবে এটি সবচাইতে বেশি জনপ্রিয়, কারণ এটি সব জায়গায় সাপোর্ট করে । যদিও অনেকে ব্যবহার করে, কিন্তু অনেক রিস্ক ।

আমরা Marketplace থেকে Payoneer এবং Payoneer থেকে Bank এ বা সরাসরি বুথ থেকে Payoneer Card এর মাধ্যমে টাকা তোলতে পারি ।

পুরো পোস্টটি একটি PowerPoint Slider আকারে রাখা আছে, চাইলে Download করে রাখতে পারেন ।

 

সর্বশেষে বলতে চাইঃ

উপরে বলেছিলাম সফলতা অনেকাংশে প্রশিক্ষকদের উপর নিরভর করে, এজন্য ভাল প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষণ নিতে না পারলে এবং সাহায্য না পেলে স্বপ্ন ব্যর্থ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

আমার দেখা এমন একটি প্রতিষ্ঠান হল Independent-IT, যে প্রতিষ্টাঙ্কে চোখ বন্ধ করে বিশ্বাস করা যায় । আমার আজকের এতদূর এগুনোর পিছনে এই প্রতিষ্টানেরই অবদান সবচাইতে বেশি, কারণ সবসময় আমি তাদের কাছে Help পেয়েছি। বিশেষ করে আমার ট্রেইনার মোঃমেহেদী হাসান ভাইয়ার কাছে, তাঁর মতন একজন ট্রেইনার পাওয়া ভাগ্যের ব্যপার ।

উল্লেখ্য, এখান থেকে প্রশিক্ষন নেয়ার আগে আমি আরো একটি প্রতিষ্ঠান থেকেও প্রশিক্ষণ নিয়েছিলাম, কিন্তু কোন ফলাফল পাইনি। যার মূল কারণ Supportনা পাওয়া, যেটা Independent-IT ডেডিকেটলি করে থাকে।

কোন প্রশ্ন বা জিজ্ঞাসা থাকলে নামাকে নক করতে পারেন Facebook এ ।

বিস্তারিত জানতে অথবা কোন তথ্যের জন্য় জয়েন করতে পারেন Independent IT Facebook Group এ । আশা করি সব রকম হেল্প পাবেন নাদের কাছে ।

Write Your Comment
  • Facebook
  • Twitter
  • Google+
  • Blogger

ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে করব?

আজকে নেকদম নতুনদের একটা গাইডলাইন দেয়ার চেষ্টা করছি যাতে "ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে করব?" এই প্রসেসগুলো অনেকটা পরিষ্কার হয়ে যাবে ।
  • Facebook
  • Twitter
  • Google+
  • Blogger

Pin It on Pinterest

Shares
Share This