15

আমার টাকা কোথায়? ফ্রিলান্সার এক্সপ্রেস উইথড্র বাংলাদেশ

কিছুদিন আগে প্রথমবারের মত আমি ফ্রিলান্সার ডট কম থেকে কিছু টাকা উত্তোলন করেছিলাম। এ সময় এমন কিছু ঘটনা ঘটেছে বেশিরভাগ নতুনদের জন্যই বিভ্রান্তির সৃষ্টিকারী। আমার টাকা ২ দিনের জন্য উধাও-ই হয়ে গিয়েছিল।

প্রথমত আলহামদুলিল্লাহ, অত্যন্ত গর্বের সহিত বলতে হয় যে- যেখানে অর্থাৎ যে দেশে পেপাল নেই সে দেশকে ফ্রিলান্সার ডট কম গুরুত্ব দিয়েছে। মাত্র ১৩ টা দেশ থেকে এখন পর্যন্ত এক্সপ্রেস ইউথড্র সম্ভব। এবং তার মধ্যে আমাদের বাংলাদেশ একটি। রক্সপ্রেস উইথড্রয়াল খুবি সহজ প্রক্রিয়া। তবে প্রথমবার যখন টাকা উত্তোলন করা হয় তখন সবার মনে নানান প্রশ্ন ঘুরে বেড়ায়, কিভাবে কি করবে, কত দিনে টাকা আসবে ইত্যাদি। এখন আমরা সেটাই দেখব।

ফ্রিলান্সার ডট কম থেকে টাকা উত্তোলনের ধাপ গুলোঃ

১. প্রথমে এই পেজে যেতে হবে। দেশের নাম ও টাকার পরিমাণ উল্লেখ করুন। এক্সচেঞ্জ রেট ৭৯ টাকার কাছাকাছিই হয়।

২. এবার নিচের দিকে নেমে নিজের ব্যাংক একাউন্টের তথ্য দিতে হবে। প্রথমবার সব তথ্য দিয়ে যখন টাকা উত্তোলন করে ফেলবেন তখন ফ্রিলান্সার এই অপশন গুলো লক করে দিবে। অর্থাৎ পরবর্তিতে টাকা তোলার সময় আপনাকে আর তথ্য দিতে হবে না, কারণ ফ্রিলান্সার ভেরিফাইড তথ্য গুলোই ব্যবহার করবে।

এইখানে আপনি প্রথমে আপনার যে কোনো একটি বাংলাদেশি ব্যাংকের নাম দিবেন। আমি ডাচ-বাংলা-ব্যাংক ইউজ করেছি। তারপর একাউন্ট নাম্বার দিবেন। অতঃপর রাউটিং নাম্বার দিবেন। রাউটিং নাম্বার একটা বিরম্বনার বিষয়। তাই না? আসলে এমন কিছুই না। আমি যখন রাউটিং নাম্বার দিয়েছিলাম তখন গুগোল করে বের করেছি “What are the routing number of DBBL?” … বা আপনি যে ব্যাংক ব্যবহার করেন, সরাসরি সেই ব্যাংকের ওয়েব সাইটে গেলেই এই রাউটিং নাম্বার পেয়ে যাবেন। এই লিংক থেকেও বাংলাদেশের সব ব্যাংকের রাউটিং নাম্বার নিতে পারবেন।

এবার আপনার একাউন্ট টাইপ দিবেন। শুধু মাত্র আপনার নিজের একাউন্ট হলে ইন্ডিভিজুয়াল সিলেক্ট করবেন। তারপর নাম দিবেন ঠিক করে, যেভাবে ব্যাংক একাউন্টে দেয়া। ভুল হলে পরবর্তিতে ঝামেলা পোহাতে হবে বা টাকা ডেলিভার হবে না। এরপর নিজের দেশ নাম দিবেন।

৩. এবার নিজের জন্ম তারিখ এবং বাসার ঠিকানা দিবেন। এক্ষেত্রে Address line 2 কাজে না লাগলে খালি রেখে দিবেন। তারপর আপনার শহরের নাম দিবেন।

অতঃপর আপনার State/Province এর নাম দিন। এক্ষেত্রে আমি ঢাকা দক্ষিণ দিয়েছি, এটা তারা এক্সেপ্ট করেছে। যদি আপনার সিটির ভেতর কোনো ভাগ না থাকে তাহলে City তে যা লিখবেন state এও তা লিখে দিবেন। কোনো সমস্যা নেই। আর শেষ মেষ আপনার পোস্টাল কোড এবং দেশের নাম পুনঃরায় নির্বাচন করুন।

৪. এরপর Withdraw Funds ক্লিক করুন। আপনাকে ফোন নাম্বার ভেরিফায় করতে বলবে। ফোন নাম্বার দিয়ে ভেরিফায় করে, এই টাকা উত্তোলনে আপনার সম্মতি আছে তা জানিয়ে দিবেন ফ্রিলান্সাকে। তখন নিচের মত একটা পেইজ আসবে।

৫. অতঃপর Submit request ক্লিক করবেন। আপনার উইথড্র সাকসেস্ফুল লিখা এমন পেজ আসবে।

এবার আপনার অপেক্ষার পালা। যদি এমন হয় যে আপনি প্রথমবার টাকা উত্তোলন করছেন, তাহলে ফিলান্সার আপনার কাছে ১৫ দিন সময় চাইবে। আর আপনি দিতে বাধ্য। আমার কাছে ১৭ দিন সময় চেয়েছিল কারণ মাঝে ২ দিন কোনো কারণে তাদের বন্ধ ছিল। এই সময় টুকু আপনি USD লিখায় কার্সর রাখলে  দেখতে পাবেন  BDT লিখার পাশে উইথড্র এমাউন্ট দেখাবে।

১৫ দিন পরে দেখবেন আর আপনার উত্তোলিত টাকার পরিমাণ দেখাবে না। BDT লিখাটিও চলে যাবে। তখন ভয় পাবেন না। বুঝবেন টাকা চলে এসেছে। বা টাকা আসবে ১/২ দিনের ভেতর। ব্যাংকে ফোন করে বা ইন্টারর্নেট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে চেক করে নিবেন টাকা এসেছে নাকি। আমার ক্ষেত্রে যা হয়েছিল, আমি ১৫ দিন পর দেখি আমার টাকা গায়েব। কোন হদিস নাই কিছু নাই। টাকা যে তুলেছি তার কোন চিহ্ন নেই। তারপর আরো ২ দিন অপেক্ষা করেছি, দেখি  টাকা চলে এসেছে।

এভাবে আপনি খুব সহজে টাকা উত্তোলন করতে পারবেন। কোন চিন্তার কারন নেই। এটাই সবচেয়ে লাভজনক উপায়। আরো কিছু জানার থাকলে আমাকে জিজ্ঞেস করতে পারেন। ধন্যবাদ সবাইকে। ভালো লেগে থাকলে শেয়ার করবেন। লেখাটি আমার ব্লগে দেখে আসুন। 

হুসেইন আব্দল্লাহ, এস ই ও অ্যান্ড এফিলিয়েট মার্কেটার

 

Write Your Comment

Pin It on Pinterest

Shares
Share This